বঙ্গবন্ধুর আদর্শে নিবেদিত ইঞ্জিনিয়ার লিয়াকত আলী টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী

মোফাজ্জল হোসেন :মোহনা সংবাদ২৪ডটকম,ঢাকা:

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও দীক্ষা নিয়ে বঙ্গবন্ধু মুক্তির ছাত্র আন্দলনে সম্পৃক্ত থেকেই যিনি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে পথ চলা শুরু করেন।যিনি নাড়ীর পড়শে কোমল কাদামাটিকে আপন করে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে ভালবাসেন। এলাকাবাসীর ভালবাসায় আজ যিনি নিজেকে অনেক উচ্চতায় নিয়ে গেছেন।

 

শিক্ষাক্ষেত্রে যিনি সর্বদা নিজের মেধা,মনন প্রয়োগ করতে চান,কালিহাতীর রাজনীতিতে যাকে ছাড়া ভাল কিছু ভাবা যায় না,কালিহাতী বাসীর হৃদয়ে মহৎ যে ব্যক্তির নাম লেখা হয়েছে, যাকে একজন সাধারণ মানুষ হিসেবে নয় এমপি হিসেবে দেখতে চায় টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের এলাকাবাসি।
কর্মযজ্ঞ, মেধা আর নিজ যোগ্যতায় সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব, তৃনমূল রাজনীতির পথ বেয়ে তিনি এখন জেলা রাজনীতিতে সুপরিচিত নাম, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত আর বঙ্গবন্ধু তনয়া, উন্নয়নের রূপকার মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ গঠনের নিবেদিত এক কর্মীর নাম ইঞ্জিনিয়ার মো:লিয়াকত আলী।

 

তিনি টাঙ্গাইল জেলা পরিষদের সর্বাধিক ভোটে নির্বাচিত সদস্য ও কালিহাতী উপজেলা আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও এস এ গ্রæপ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক। তিনি দীর্ঘদিন থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে শেখ হাসিনার বিশ্বজয়ী নেতৃত্ব ও সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড তুলে ধরে জনমত গঠনে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। অনলবর্ষি বক্তা হিসাবেও এলাকায় বেশ জনপ্রিয় তিনি। আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নীতিতে বিশ্বাসী ও সজীব ওয়াজেদ জয়ের একনিষ্ট ভক্ত হিসেবে তিনি তরুন প্রজন্মের কাছেও বেশ গ্রহনযোগ্য।
সফল,জনপ্রিয় ও মেধাবী ইঞ্জিনিয়ার মো: লিয়াকত আলী ১৯৬১ ইং সনে কালিহাতী উপজেলার দেউপুর মাস্টার বাড়ী গ্রামে এক সম্ভান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন।পিতা মৃত: আব্দুস সাত্তার সরকার ছিলেন একজন স্কুল শিক্ষক ও মাতা মৃত: খোদেজা খাতুন ছিলেন গৃহিনী।ছয় ভাই চার বোন,ভাইবোনদের মাঝে তিনি তৃতীয়।

 

তিনি ১৯৭৬ সালে দেউপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, ১৯৭৮ সালে সরকারি সা’দত কলেজ থেকে এইচএসসি,১৯৮৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারি কলেজ (বর্তমান বুটেক্স) থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করেন এবং পাবলিক সার্ভিস কমিশন কর্তৃক নির্বাচিত হয়ে এজিবিতে সরকারী চাকুরী জীবন শুরু করেন এবং পরবর্তীতে তিনি বিটিএমসিতে ১ম শ্রেণির কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন।

 

সাড়ে পাঁচ বছর বিটিএমসিতে ম্যানেজার হিসেবে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করে সেচ্ছায় ইস্তফা দিয়ে বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে জিএম হিসেবে যোগদান করেন।সেখান থেকেই মূলত স্বাতন্ত্র ব্যবসা শুরু করেন এবং তিলে তিলে গড়ে তুলেন দু’টি লিমিটেড কোম্পানীসহ চারটি প্রতিষ্ঠান নিয়ে এসএ গ্রæপ।
ব্যক্তিগত জীবনে তিনি দুই পুত্র সন্তানের জনক। সহধর্মিনী মিসেস কামরুন নাহার বিএড,এম এড-১ম শ্রেণীতে ১ম ঢা.বি। বড় ছেলে মো:ফাহিম আনজুম বুয়েটে দুই বছর অধ্যায়নের পর ক্রেডিট ট্রান্সফার করে ইউনিভার্সিটি অব আই ও ওয়া ইউএসএ থেকে ডিসট্রিংশন গোল্ড মেডেল পেয়ে ¯œাতক স¤পন্ন করে একই বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে কর্মরত থেকে তিনি ও তার স্ত্রী পিএইচডি করছেন। ছোট ছেলে মেহরাব তানজীম বুয়েট থেকে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং শেষ করে বর্তমানে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে কর্মরত আছে।

 

ইঞ্জিনিয়ার মো:লিয়াকত আলী ব্যক্তিগত ও ব্যবসায়ীক প্রয়োজনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের প্রায় ১৫টি দেশ ভ্রমণ করেছেন।
জানা গেছে, চাকরী ও ব্যবসার পাশাপাশি দীর্ঘ একযুগেরও বেশি সময় ধরে তিনি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। তৎকালীন এক-এগারো সরকারের সময় রাজনৈতিক পট পরিবর্তনকালে যখন কেউ প্রকাশ্যে রাজনীতি করতে পারে নাই তখন তিনি তার ক্লিন ইমেজ কাজে লাগিয়ে স্থানীয় আ’লীগের নেতাকর্মীদের ইফতার পার্টিতে একত্র করতে সক্ষম হন এবং তত্বাবধায়ক নামক জগদ্দল পাথর থেকে মুক্তির বিষয়ে আলোচনা অব্যাহত রাখেন।

 

শিক্ষানুরাগী হিসেবে তিনি প্রিয় জন্মস্থান কালিহাতীতে শিক্ষার মান উন্নয়নে সবর্দা কাজ করে যাচ্ছেন এবং মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণসহ শিক্ষাবৃত্তি প্রদান অব্যাহত রেখেছেন সেইসাথে এলাকার গরীব-দু:খী মানুষকে আর্থিক সহযোগিতা প্রদানসহ আর্তমানবতার সেবায় নিয়মিত সাহায্য-সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

 

পারিবারিক, ব্যক্তি, সামাজিক, রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক সমস্যা নিয়ে যে কোন অসহায় মানুষ ছুটে আসলে, তিনি আন্তরিকতার সাথে তাদের সমস্যা সমাধানের চেস্টা করেন। এছাড়াও বন্যা মোকাবেলায় দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ, ঈদবস্ত্র, শীতবস্ত্র বিতরণ করে তিনি সাধারণ মানুষকে স্বাবলম্বি করতে ভ্যান, রিক্সা, বিধবাদের মাঝে গাভী বিতরণ, এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও  জরাজীর্ণ মসজিদের উন্নয়নকল্পে আর্থিক সহায়তা প্রদান করে যাচ্ছেন যার ফলে তিনি এলাকায় সাধারণ মানুষের কাছে দানবীর হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন।

 

শুধু তাই নয় শিক্ষার মান বৃদ্ধিতে তিনি কালিহাতীতে একটি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের জন্য উদ্ধ্যোগ হাতে নিয়েছেন যেখানে নিজ এলাকাতেই গরীব মেধাবী ছাত্র/ছাত্রীরা উচ্চ শিক্ষা লাভের সুযোগ পাবে। তার এ মহতী কর্মকান্ডের জন্য সম্প্রতি তিনি সমাজ সেবায় বিশেষ অবদানের জন্য ‘বঙ্গবন্ধু স্মৃতি স্বর্ণপদক-২০১৭’ লাভ করেন।
তিনি ব্যক্তিগত যোগাযোগ ও সাংগঠনিক দক্ষতায় নিরলসভাবে কাজ করে তাঁর নির্বাচনী এলাকা টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের সর্বস্তরের মানুষের প্রাণপ্রিয় নেতায় পরিনত হয়েছেন। এলাকাবাসীর ধারনা আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইঞ্জিনিয়ার মো:লিয়াকত আলী আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেলে নৌকার মাঝি হয়ে বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন এতে কোন সন্দেহ নেই।

 

এক বার্তায় সমাজসেবক ইঞ্জিনিয়ার মো: লিয়াকত আলী বলেন,আমি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনে আওয়ামীলীগৈর মনোনয়ন প্রত্যাশী।

 

আমি মানুষের সেবায় নিজেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত নিয়োজিত রাখতে চাই। আল্লাহ যেন আমাকে সেই তওফিক দেন। আমি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে বদ্ধ পরিকর।

 

জননেত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের প্রতি আস্থা রেখেই বলতে চাই, কালিহাতী বাসীর উন্নয়নে প্রিয়নেত্রীর যে কোনো সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে মানুষের সেবায় আমি নিজেকে নিয়োজিত রাখবো। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক,আমি জয় বাংলার সৈনিক।

 

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে লালন করেই আমি বেঁচে থাকতে চাই কালিহাতী উপজেলা বাসীসহ দেশবাসীর মাঝে।



চেয়ারম্যান ও প্রধান সম্পাদক : মনির চৌধুরী, সম্পাদক: মো: মোফাজ্জল হোসেন, সহকারী সম্পাদক : মোঃ শফিকুল ইসলাম, ব্যবস্থাপনা পরিচালকঃ সৈয়দ ওমর ফারুক, নির্বাহী সম্পাদক: ঝরনা চৌধুরী।

সম্পাদকীয় কার্যালয়: ১২ পুরানাপল্টন,(এল মল্লিক কমপ্লেক্স ৬ষ্ট তলা)মতিঝিল, ঢাকা-১০০০।
ফোন বার্তা বিভাগ: ০২-৯৫৫৪২৩৭,০১৭৭৯-৫২৫৩৩২,বিজ্ঞাপন:০১৮৪০-৯২২৯০১
বিভাগীয় কার্যালয়ঃ যশোর (তিন খাম্বার মোড়) ধর্মতলা, যশোর। মোবাইল: ০১৭৫৯-৫০০০১৫
Email : news24mohona@gmail.com, editormsangbad@gmail.com
© 2016 allrights reserved to MohonaSangbad24.Com | Desing & Development BY PopularITLtd.Com, Server Manneged BY PopularServer.Com