জরায়ু বাদ দিচ্ছেন দিনমজুর নারীরা!

ক্ষুধা মেটাতে চান নির্ঝঞ্ঝাট কাজ

একবিংশ শতাব্দীতে এসেও সামান্য দুমুঠো খাবার জোগাড়ের জন্য জরায়ু বাদ দিতে হচ্ছে দিনমজুর নারীদের। তাদের বেশির ভাগেরই বয়স ২৫ এর কোঠায়। তবে অন্যের জোরাজুরিতে নয়, পেটের দায় মেটাতে নির্ঝঞ্ঝাট কাজের জন্য স্বেচ্ছায় এই আত্মঘাতী পথ বেছে নিচ্ছেন তারা। যাতে ঋতুকালীন দিনগুলো তাদের কাজে বাধা হয়ে না দাঁড়ায়। কারণ, একদিন কাজে না আসা মানে বাড়িতে হাঁড়ি চড়বে না। আঁতকে ওঠার মতো এমন ঘটনা ঘটছে ভারতের মহারাষ্ট্রে।

ভারতের সংবাদ মাধ্যম ‘এই সময়’ জানাচ্ছে, কাজের খোঁজে বহু মানুষ আসেন এই রাজ্যে। স্বামী-স্ত্রী যদি একসঙ্গে আখের খেতে কাজ করতে পারেন তাহলে যা পাওয়া যায় তাই দিয়ে দুজনের পেট চলে যায়। যে সমস্ত নারী এই আখের খেতে কাজ করার জন্য আসেন তাদের বেশির ভাগেরই বয়স ২৫। অর্থাৎ এই বয়সে মেয়েদের সক্রিয় যৌন জীবন থাকে এবং সন্তানের জন্ম দিতেও তারা সক্ষম হন।

তাই যাতে কাজের কোনো ক্ষতি না হয় সেজন্য স্বামী-স্ত্রী একসঙ্গে কাজে যোগ দেন। আখের খেতের মালিকদের মতে, নারী শ্রমিকদের ঋতু হলে মেয়েরা দুদিন ছুটি নেন, ফলে তখন কাজে লোকসান হয়। মেয়েরা দিনে তিন থেকে চার কুইন্টাল আখ কাটতে পারে। একদিন না পারলে তখন অনেকটা টাকা ক্ষতি। তাই কাজে ঢোকার আগেই তারা চুক্তিবদ্ধ হয়ে যান, সময়ের মধ্যেই জরায়ুচ্ছেদ করিয়ে নেবেন। এমনকী এজন্য মালিকরা আগেভাগে তাদের টাকাও দিয়ে রাখেন। এর ফলে মালিকরাও একটা বাড়তি সুবিধা পান, দ্রুত কাজ তুলে নেওয়ার ক্ষেত্রে। কোথাও কোথাও মালিকের কিছুটা বাধ্যবাধকতাও থাকছে এই জরায়ুচ্ছেদের কাজে। প্রতি টন আখ কাটায় তারা ২৫০ টাকা করে পান। বছরের মধ্যে চার থেকে পাঁচ মাস এই কারখানায় কাজের খুবই চাপ থাকে।

এ সময়ের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, এমনও ঘটনা হয়েছে, কাজ করতে এসে মালিকের হাতেই ধর্ষণের স্বীকার হতে হয়েছে তাদের। যেখান থেকে তাদের শারীরিক, মানসিক এবং হরমনগত অনেক রকম সমস্যা তৈরি হয়েছে। এসেছে মৃত্যুর খবরও। এ ছাড়া মেয়েদের জন্য থাকে না ন্যূনতম বাথরুমের ব্যবস্থাও। খেতের পাশেই তাঁবু খাটিয়ে কোনো রকমে বাঁচতে হয়। আসলে দিন গুজরানের জন্য আর যে কোনো বিকল্প পেশা নেই তাদের!



চেয়ারম্যান ও প্রধান সম্পাদক : মনির চৌধুরী, সম্পাদক: মো: মোফাজ্জল হোসেন, সহকারী সম্পাদক : মোঃ শফিকুল ইসলাম, ব্যবস্থাপনা পরিচালকঃ সৈয়দ ওমর ফারুক, নির্বাহী সম্পাদক: ঝরনা চৌধুরী।

সম্পাদকীয় কার্যালয়: ১২ পুরানাপল্টন,(এল মল্লিক কমপ্লেক্স ৬ষ্ট তলা)মতিঝিল, ঢাকা-১০০০।
ফোন বার্তা বিভাগ: ০২-৯৫৫৪২৩৭,০১৭৭৯-৫২৫৩৩২,বিজ্ঞাপন:০১৮৪০-৯২২৯০১
বিভাগীয় কার্যালয়ঃ যশোর (তিন খাম্বার মোড়) ধর্মতলা, যশোর। মোবাইল: ০১৭৫৯-৫০০০১৫
Email : news24mohona@gmail.com, editormsangbad@gmail.com
© 2016 allrights reserved to MohonaSangbad24.Com | Desing & Development BY PopularITLtd.Com, Server Manneged BY PopularServer.Com